আজ ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পুষ্পকাটি ফারিয়া হত্যার আসামী আলিম এখন আলিপুরের মোটরসাইকেল চালক ইমান আলী হত্যার আসামী

নিজস্ব প্রতিনিধি: দেবহাটা উপজেলার পুষ্পকাটির ফারিয়া হত্যার আলোচিত আসামী আলিম গাজী এখন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আলিপুরের মোটরসাইকেল চালক ইমান আলী হত্যার আসামী। বর্তমানে জেল হাজতে আছে। সে দেবহাটা উপজেলার কুলিয়া ইউনিয়নের পুষ্পকাটি গ্রামে এবং আফসার গাজী ওরফে ভন্টুর ছেলে। এজাহার সূত্রে জানা যায়, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আলীপুর বুড়িরপুকুর কান্দা গ্রামের ইমান আলী গত বুধবার (২৭নভেম্বর)২০১৭ তারিখে রাতের খাবার খেয়ে তাহার ব্যবহৃত মোটরসাইকেল নিয়ে ভাড়া খাটার জন্য সাতক্ষীরার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। তারপর সে বিভিন্ন জায়গায় যাত্রী নিয়ে যায়। সর্বশেষ ২৮নভেম্বর ২০১৭ তারিখে একজন যাত্রী নিয়ে আলীপুরের দিকে যায়। মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) ২০১৭ তারিখ সকালে আলিপুরের বুড়ির পুকুরের পাশে এক ডোবায় তার লাশ পাওয়া যায়। কিন্তু তাহার মোটর সাইকেলটি পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে তার ছেলে মো: অহিদুজ্জামান গত (২৮নভেম্বর)২০১৭ তারিখে বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামী করে সাতক্ষীরা সদর থানা মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং- ৬৩, ধারা- ৩০২/২০১/৩৪/৩৭৯ পিসি। সিআইডি মামলাটি পূন: তদন্তের জন্য পেয়ে হত্যার রহস্য উৎঘাটনসহ মটর সাইকেল উদ্ধারের লক্ষ্যে তদন্ত কালে সন্দেহকৃত আসামী আলিম কে গত ১০নভেম্বর ২০২০ তারিখ রাতে কুলিয়া থেকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। এই আলিম অত্র ঘটনার সাথে জড়িত আছে বলে ধারণা করছে সিআইডি। এবং ইতি মধ্যে তাদের কাছে অনেক তথ্য প্রদান করেছেন। এই ঘটনার প্রকৃত তথ্য উৎঘাটিত ও আসামী আলিমকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য আদালতের কাছে ৫দিনের জন্য পুলিশ রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে বলে জানা যায়। এই আলিম একজন নাশকতার আসামী এবং পুষ্পকাটি গ্রামের ২০১৩ সালের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কবর রচনাকারী মোকছেদের ধারালো অস্ত্র। এমন কোন অপকর্ম নেই যে সে করেনি। তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে যেমন, দেবহাটা থানার মামলা নং, ০৮(০১)২০১৫, ধারা- ৩/৩(এ)/৬, ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে তৎসহ ১৯৭৪সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৫(৩), দেবহাটা থানার মামলা নং- ৪(১১)২০১৮, ধারা- ৩/৫/৬, ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে তৎসহ ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৫(৩)/২৫ডি। তাকে গ্রেফতারের পর এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে। কিছুদিন আগে পুষ্পকাটি গ্রামের ফারিয়া হত্যা মামলায় গাঁজা সেবনরত অবস্থায় গ্রেফতার হয়। সে ছিলো ঐ মামলার স্বাক্ষী তারপর আস্তে আস্তে বেরিয়ে আসতে শুরু করে তার আসল চেহারা। তবে এই আলিমকে সঠিক ভাবে জিজ্ঞাসা করলে হইতো বেরিয়ে আসতে পারে ইমান আলী হত্যার মূল রহস্য এমনটা মনে করেন অনেকেই। এবিষয়ে সাতক্ষীরা সিআইডি পুলিশ পরিদর্শক মো: আখতারুজ্জামানের সাথে কথা বললে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং আসামী আলিমকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য ৫দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে বলে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর