আজ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর আবার ও যানজটের কবলে

জাহাঙ্গীর হোসেন: সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় অবস্থিত বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্থলবন্দর ভোমরা স্থলবন্দর। এই বন্দর থেকে সরকার যেমন প্রতিবছর মোটা অংকের রাজস্ব আয় করেন তেমনি এতদ্বয় অঞ্চলের হাজার হাজার মানুষের জীবিকা নির্বাহের একমাত্র স্থান। এই বন্দর টি বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ অপার সম্ভাবনাময় বন্দর হওয়া শর্তেও যানজট বন্দর সংলগ্ন সর্ব শ্রেণীর মানুষের কাছে একটা অসহ্য যন্ত্রনার কারণ হয়ে উঠে ছিল। শুধু বন্দর সংলগ্ন ব্যক্তিদের কাছে নয় ভোমরাসহ আশেপাশের এলাকার লোকজন বন্দর সংলগ্ন রাস্তা দিয়ে কোন যানবাহন তো দুরের কথা হেঁটে ও যেতে পারতো না। পাঁচ মিনিটের পথ অতিক্রম করতে সময় লেগে যেত পাঁচ ঘণ্টা। স্কুল কলেজ মাদ্রাসায় পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রীরা সময় মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যেতে পারতো না। এই এলাকার মানুষ অসুস্থ হলে হাসপাতালে নিয়ে যেতে চাইলে ১০ কিলোমিটার পথ ঘুরিয়ে নিয়ে যেতে হতো । দীর্ঘ দিনের যানজট নিরসন করে এই দুর্বিসহ যন্ত্রনা থেকে বন্দর ব্যবসাহী , শ্রমিক, শিক্ষার্থী ও এলাকারই সাধারণ মানুষ কে মুক্তি দেওয়ার জন্য বন্দর সংলগ্ন কিছু স্বচেতন ব্যক্তি নিজ উদ্যোগে এগিয়ে আসে। ভোমরা স্থলবন্দকে যানজট মুক্ত করার জন্য এলাকার কিছু বেকার যুবক দের নিয়ে যানজট নিরসন কমিটি নামে একটা কমিটি গঠন করে। সাথে সাথে সরকারের অধিগ্রহণ করা একটা নিচু খানা খন্দ জমিতে প্রায় ২০লক্ষ টাকা খরচ করে ইট বালি দিয়ে ভরাট করে দেয় যাহাতে আমদানি রপ্তানি কাজে নিয়োজিত ট্রাক পিকআপ গুলো রাস্তায় দাঁড়িয়ে যানজট সৃষ্টি না করে ঐ খানে দাঁড়াতে পারে। আর এ কাজ পরিচালনা করার জন্য চল্লিশ সদস্য বিশিষ্ট যানজট নিরসন কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটির সদস্য রা ভোর থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত নিরালস ভাবে পরিশ্রম করে ভোমরা স্থলবন্দর কে একটা যানজট মুক্ত বন্দরে রুপান্তরিত করে। এই পরিশ্রম বাবদ ট্রাক প্রতি যে ৫০ টাকা করে ঐ কমিটি উঠাতো তা দিয়ে এই ৪০ জনের সংসারের জীবিকা নির্বাহ হতো। দীর্ঘ দিনের যানজট নিরসন হওয়ায় এলাকাবাসী , ব্যবসাহী পথচারী, ছোট ছোট যানবাহন চালক, দোকানদার শ্রমিক সবাই মধ্যে স্বস্থি ফিরে আসে। এটা দেখে এক শ্রেণীর মানুষের গাত্রদাহ শুরু হয়ে যায় । কি ভাবে আবার এই বন্দর কে অচল করে দেওয়া যায় । কি ভাবে মানুষের জীবন কে দূর্বিসহ করে তোলা যায় এই চিন্তায় মগ্ন হয়ে পড়ে। তাদের এই অসৎ উদ্দেশ্য সফল করার জন্য বিভিন্ন ষড়যন্ত্র চালিয়ে যেতে থাকে। এক সময় তাদের এই ষড়যন্ত্র সফল ও হয় আর আবার ও যানজটের কবলে পড়েছে ভোমরা স্থলবন্দর। গত দুই দিন ধরে বন্দর সংলগ্ন রাস্তার উপরে দাঁড়িয়ে আছে কয়েক হাজার ট্রাকসহ অন্যান্য গাড়ি।পায়ে হেঁটে ও মানুষ যেতে পারছেনা তার গন্তব্যে। এই রাস্তায় চলতে গিয়ে একটু অসাবধান হলেই ঘটে যেতে পারে দুর্ঘটনা। আর একটা দুর্ঘটনা বয়ে আনতে পারে সারা জীবনের কান্না। যানজট মুক্ত ভোমরা বন্দরের দাবি তে যথাযথ কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন বন্দর সংলগ্ন সর্বস্তরের জনগণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর